ফেসবুক ( Facebook) হলো সোশ্যাল মিডিয়া জগতের এক জনপ্রিয় নাম।বর্তমানে লক্ষ লক্ষ মানুষ প্রতিনিয়ত ফেসবুকে সক্রিয় থাকছে।


বিশাল এই সোশ্যাল মিডিয়া মাধ্যমটিতে নিশ্চই আপনার ও একটি অ্যাকাউন্ট রয়েছে।অন্যান্য সব দেশের মতোই বাংলাদেশেও রয়েছে অসংখ্য ফেসবুক ব্যাবহারকারী।


ফেসবুক এর এই জগতে আপনি হয়তো অনেক আনন্দেই সময় কাটাচ্ছেন।কিন্তু আপনার অবশ্যই এটা জানা দরকার যে ফেসবুক একাউন্ট এর নিরাপত্তার জন্য কি করা উচিত? আর কেনো আপনার ফেসবুক একাউন্ট এর নিরাপত্তা নিয়ে ভাবা উচিত ইত্যাদি বিষয়বস্তু নিয়ে।


প্রত্যেক ফেসবুক ব্যাবহারকারীর জন্য আজকের আর্টিকেলটা অনেক গুরুত্বপূর্ন।আপনার ও যদি একই ফেসবুক একাউন্ট থেকে থাকে তাহলে অবশ্যই আজকের আর্টিকেল মনোযোগ সহকারে পড়ুন।


আজকের আর্টিকেলে আপনারা যা জানতে পারবেন :


  • ফেসবুক একাউন্ট এর নিরাপত্তা কি?
  • ফেসবুকে আপনার আপনি কিভাবে আপনার নিরাপত্তা রক্ষা করতে পারেন?
  • আপনি কিভাবে আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট কে নিরাপদ রাখতে পারেন? কিভাবে হ্যাক হওয়া থেকে বাঁচবেন?



ফেসবুক একাউন্ট এর নিরাপত্তা কি?


সহজ ভাষায় বলতে গেলে ফেসবুক একাউন্ট এর নিরাপত্তা হলো ফেসবুকে আপনার ব্যাক্তিগত ডাটা, ছবি, ভিডিও ফাইল, মেসেজ কিংবা ইত্যাদি বিষয়ের নিরাপত্তা।ফেসবুকে আমরা প্রতিনিয়ত আমাদের সাথে ঘটে যাওয়া বিভিন্ন ছবি, ভিডিও , স্ট্যাটাস লিখে পোস্ট করি।


মেসেজ এর ক্ষেত্রে আমরা মেসেঞ্জার এর সাথে খুব সহজে যেকারো সাথে মেসেজ করে থাকি।এখন আপনার এই সমস্ত বেক্তিগত ডেটা যদি বাহিরে কোথাও কারো হাতে, কিংবা কোনো থার্ড পার্টি কোম্পানির কাছে চলে যায় সেক্ষেত্রে কিন্তু অবশ্যই আপনার নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন আসবে।


তাহলে নিশ্চয়ই বুঝে গেলেন যে, ফেসবুকে আপনার বেক্তিগত সব ডেটা কতটুকু সুরক্ষিত কিংবা না এসব হলো আপনার ফেসবুক এর নিরাপত্তার বিষয়বস্তু।


ফেসবুকে আপনি কিভাবে আপনার নিরাপত্তা রক্ষা করতে পারেন?


ফেসবুক বর্তমানে এমন একটা জনপ্রিয় প্লাটফর্মে পরিণত হয়েছে যেখানে আমরা আমাদের বেক্তিগত থেকে শুরু করে সমস্ত প্রকার ছবি, ভিডিও পোস্ট করে থাকছি।কিন্তু আমরা হয়তো অনেকে ভাবছি না ফেসবুক এর এসব নিরাপত্তা নিয়ে।


আমরা যখন ফেসবুকে কারো সাথে বেক্তিগত কোনো মেসেজ করি,অনেক সময় সেটাকে আমরা রিমুভ করে থাকি।


আরো পড়ুন : ইনস্টাগ্রামে রিয়েল ফলোয়ার এবং লাইক বাড়াবেন কিভাবে?


কিন্তু আমরা হয়তো জানিনা যে ফেসবুকের সার্ভারে কিন্তু সেই মেসেজ থেকে যায়।এখন কোনো সময় যদি ফেসবুক সেই ডেটা অন্য কারো সাথে শেয়ার করে সেক্ষেত্রে অবশ্যই আপনার সমস্যা হতে পারে।


তাহলে আসা করি আমরা বুঝে গেলাম যে ফেসবুক এর নিরাপত্তা বিষয়টি নিয়ে কেনো আমাদের ভাবতে হবে।তাহলে আসুন জেনে নেই যে আসলে কি কি বিষয়ে আমাদের জানা থাকলে আমাদের নিরাপত্তা নিয়ে আর ভাবতে হবে না।


১) ফেসবুক যেহেতু একটি সোশ্যাল মিডিয়া মাধ্যম, তাই এইখানে কখনো আপনার নিতান্তই বেক্তিগত কোনো ছবি কিংবা ভিডিও শেয়ার করবেন না।


২)ফেসবুক থেকে অনেকে অনেক ধরনের সাইটের লিঙ্ক শেয়ার করে, যেমন বর্তমানে একটি বিষয় ফেসবুকে সবাই লক্ষ করছে সেটা হলো, সরকার থেকে নাকি 5 হাজার টাকা দেওয়া হচ্ছে, এবং সেটি করার জন্য একটি সাইটে আপনাকে লিংক দ্বারা প্রবেশ করে দুটো পেজে লাইক এবং বিভিন্ন জায়গায় শেয়ার করতে হবে ,যেটা আসলে সম্পূর্ণ ফেক।


তো এইধরনের কোনো লিংকে ক্লিক করার আগে অবশ্যই অনেক ভেবে চিন্তে করবেন।কারণ এতে আপনার বেক্তিগত তথ্য হ্যাকার দের হতে চলে যাবে।


আপনার বেক্তিগত নিরাপত্তা রক্ষার্থে একটি বিষয় আপনাকে বেশি লক্ষ রাখতে হবে, বেক্তিগত কোনো কিছুই ফেসবুকে শেয়ার করবেন না।আর তাহলে ফেসবুক থেকে আপনার নিরাপত্তা অনেকটা ভালো থাকবে।


আপনি কিভাবে আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট কে নিরাপদ রাখতে পারেন? কিভাবে হ্যাক হওয়া থেকে বাঁচবেন?


এর আগের দুটো পার্ট পড়ে আমরা জেনেছি যে ফেসবুকে আমাদের নিরাপত্তা কি, আর আমরা কিভাবে আমাদের ফেসবুক নিরাপত্তা রক্ষা করতে পারি।তবে এই পার্ট পড়ে আমরা জানব যে আমরা আমাদের ফেসবুক আইডিটা হ্যাক হওয়া থেকে কিভাবে বাঁচাবো।


ফেসবুকে আমরা নানান ধরনের ছবি, স্ট্যাটাস পোস্ট করে থাকি।কিন্তু আমাদের ফেসবুক আইডিটা কিন্তু হ্যাক হতে পারে।কিন্তু এখন অনেকে মনে করতে পারেন যে হ্যাক হলে কি হতে পারে?


আপনার ফেসবুক আইডিটা হ্যাক হলে হ্যাকার আপনাকে বিভিন্ন ভাবে ব্ল্যাকমেইল করতে পারে।যেমন ধরুন আপনার একটি ফেসবুক আইডি রয়েছে, যেখানে আপনার বন্ধুবান্ধব, স্যার, ভাইবোন, সহ আরো গুরুজন রয়েছে।


এখন সেই হ্যাকার যখন আপনার আইডির অ্যাকসেস পেয়ে যাবে তখন যদি সে আপনার আইডি থেকে কোনো খারাপ কিছু পোস্ট করে, কিংবা মেসেজ করে আপনাকে ব্ল্যাকমেইল করে সেক্ষেত্রে কিন্তু আপনি অনেক বিপদে পড়তে পারেন।


তাই আমরা জানবো কিভাবে আমরা আমাদের ফেসবুক আইডিটা নিরাপদে রাখতে পারি, যাতে কখনো কেও চাইলেও হ্যাক করতে না পারে।


১.ফেসবুক থেকে আমাদের প্রোফাইলকে লক করার একটি অপশন দেওয়া হয়েছে।তাই ফেসবুক আইডির নিরাপত্তায় আপনি অবশ্যই আপনার ফেসবুক আইডি লক করে রাখতে পারেন।


এটা আপনাকে কেও রিপোর্ট করলেও সে রিপোর্ট থেকে বাঁচতে আপনাকে সাহায্য করবে।কারণ যদি আপনার আইডি লক থাকে তাহলে কেও রিপোর্ট করলে সহজে সেটা কাজ করবে না।


২.আপনার ফেসবুকের Two Factor Authentication অপশনটি চালু করুন।এই সেটিং টা অনেক গুরত্বপূর্ন একটি সেটিং, যেটা আপনার ফেসবুক আইডি হ্যাক হওয়া থেকে বাঁচাবে।


সেটিং থেকে Security অপশনে গেলেই আপনি অপশন টি পেয়ে যাবেন।এই অপশন অন করার ফলে, কেও যদি আপনার নম্বর এবং পাসওয়ার্ড জেনে গিয়ে আপনার আইডিতে লগইন করতে যাবে, তখন আপনার নাম্বারে একটি কোড যাবে।যেটি ছাড়া কেও আপনার আইডিতিতে লগইন করতে পারবে না।


তাই অবশ্যই আপনার আইডিতে এই সেটিং অন করে রাখুন।পাশাপাশি তিনটি অপশন থাকবে সেগুলোকেও অবশ্যই অন করে নেবেন।সেটিং গুলো চালু করা অনেক সহজ তাই আমি আপনাদের দেখালাম না।যদি তাও কেও না পারেন, সেক্ষেত্রে অবশ্যই ইউটিউব থেকে ভিডিও দেখে চালু করে নেবেন।


৩.আপনার আইডিতে এমন একটি ইমেইল এবং ফোন নম্বর এড করুন যেটা সহজে কেও জানে না।এইটা করলে যেটা হবে , হ্যাকার এর কিন্তু আপনার আইডি হ্যাক করতে অনেক সমস্যা হবে।বলা যায় সে যদি আপনার ইমেইল এড্রেস,এবং ফোন নম্বর না জানে তাহলে কিন্তু আপনার আইডি সহজে হ্যাক করতে পারবে না।


পাশাপাশি আপনার জন্মদিনের যেই তারিখ রয়েছে সেটা হাইড করে রাখুন।আপনি চাইলে শুধূ তারিখ কিংবা শুধু সাল হাইড করে রাখতে পারেন।


৪. আপনার ফেসবুকে আপনি যে পাসওয়ার্ডটি ব্যবহার করবেন সেটি অবশ্যই অনেক শক্তিশালী একটি পাসওয়ার্ড হতে হবে। আর আপনি যদি সহজে কোন পাসওয়ার্ড দেন যেমন ধরুন 1234abcd এমন কিংবা 123456 তাহলে কিন্তু হ্যাকাররা সহজেই আপনার আইডিতে প্রভাব ফেলতে পারবে।


কিত এক্ষেত্রে যদি আপনি অনেক শক্তিশালী একটি পাসওয়ার্ড ব্যবহার করুন যেমন ধরুন @fahim abc#* 123 এরকম কিছু একটা, তাহলে কিন্তু আপনার পাসওয়ার্ডটি অনেক শক্তিশালী হয়ে উঠবে।


তারপর ফেসবুক আইডিকে নিরাপদ রাখার জন্য অবশ্যই আপনার ফেসবুকে একটি শক্তিশালী পাসওয়ার্ড ব্যবহার করবেন।


৫. আর্টিকেল এর প্রায় শুরুর দিকে আমি আপনাদেরকে বলেছিলাম যে ইদানিং ফেসবুকে একটা বিষয় অনেক ভাইরাল, একটা লিঙ্ক এ গিয়ে আপনি কিছু টাস্ক ফুল করে দিলে আপনি 5000 টাকা বোনাস পেয়ে যাবে, যেগুলো আসলে টোটাল ফেক।


এসমস্ত থার্ড পার্টি লিংক কিন্তু হ্যাকাররা বানিয়ে রাখে। এক্ষেত্রে হ্যাকাররা যেকোনো একটি লিংক বানিয়ে আপনাকে কৌশল অনুযায়ী সে লিংকে ক্লিক করে, আপনার ফেসবুক আইডি আপনার দ্বারা লগইন করে কিন্তু আপনার অ্যাকাউন্টটি সরাসরি হ্যাক করে ফেলতে পারে।


যেমন ধরুন আপনাকে একটি লিংক দিয়ে বলা হলো যে, এই লিংকে গিয়ে যদি আপনি একটি একাউন্ট করেন অথবা আপনার ফেসবুক আইডি দিয়ে লগইন করে এই কাজটি সম্পন্ন করেন, সে ক্ষেত্রে আপনি বোনাস কিংবা টাকা পেয়ে যাবেন।


এখন আপনি সহজেই বিশ্বাস করে সে লিংকে গিয়ে একটি ফেসবুক লগইন এর মত ইন্টারফেস দেখে সেখানে লগইন করে ফেললেন, এক্ষেত্রে কিন্তু আপনার নাম্বার এবং পাসওয়ার্ড সরাসরি হ্যাকারের কাছে চলে যাবে।


তাই কোন লিংক ক্লিক করার আগে অবশ্যই লিংকটা যাচাই করে নেবেন। বিশেষ করে ফেসবুক আইডি লগইন করার জন্য অবশ্যই দেখবেন সেখানে www.facebook.com এরকম ইন্টারফেস রয়েছে কিনা।


সর্বশেষ 


ফেসবুকে আপনার নিরাপত্তা এবং আপনার আইডি নিরাপত্তা রক্ষার্থে আপনি অবশ্যই ফেসবুকে কোন ধরনের ব্যক্তিগত কিছু আপলোড করবেন না। আর যদি সম্ভব হয় অবশ্যই আপনার ফেসবুক আইডি টি ভেরিফাই করে রাখার চেষ্টা করবেন।


ফেসবুকে যদি আপনি আপনার ব্যক্তিগত কোনো তথ্য শেয়ার করে থাকেন তাহলে সেটা অবশ্যই ডিলিট করে দিবেন। কারণ যদি কোন সময় কোন হ্যাকার আপনার ফেসবুক আইডিটি হ্যাক করে ফেলে সে ক্ষেত্রে আপনাকে নানানভাবে ব্ল্যাকমেইল করতে পারে।


তো আসা করি সম্পূর্ণ বিষয়টা আপনি বুঝে গেছেন। আর্টিকেলটা যদি না বুঝেন তাহলে অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন। যদি আপনার উপকারে এসে থাকে তাহলে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করতে ভুলবেন না।

Post a Comment

Previous Post Next Post